মোবাইল ফোনের গতি বাড়ানো দারুন উপায় ( way to speed up mobile phones )

মোবাইল ফোন যেন রক্তের সম্পর্কের ওপর এর অবস্থান । মোবাইল ফোন ছাড়া যেন এক মুহূর্ত চলে না । বউ গেলে বউ পাওয়া যায় কিন্তু মোবাইল চলে গেলে যেন মোবাইলে আর ফিরে পাওমোবাইলটি হাতছায়া যায়না এরকমটা মনোভাব সবার মধ্যেই এখন বিদ্যমান । এক মুহূর্তের জন্য কেউ যেন ড়া করতে চান না ‌। মোবাইল ফোন কে তো অনেকেই দ্বিতীয় স্ত্রী বলে বিবেচনা করে । প্রযুক্তির বদৌলতে আজ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এমন কিছু নিয়েছে করা যায় না । মনে হয় পুরো পৃথিবী হাতের মুঠোয় এখন প্রত্যেকের কাজ । এই মোবাইল ফোনের কারণে কমেছে রক্তের সম্পর্কের অনুভূতি । কেননা এখন কারো খোঁজ নেবার জন্য তার বাসায় যাবার কোন প্রয়োজন নাই । মোবাইল ফোনে যেকোনো সময় যেকোনো মুহূর্তে প্রত্যেকটি মানুষ তার প্রিয় জন্য খোঁজ নিতে পারেন নির্বিঘ্নে । আর তাইতো প্রত্যেকের কাছে মোবাইল ফোন এত প্রিয় হয়ে উঠেছে বর্তমান এই যুগে । আপনার মনে হতে পারে আপনার মোবাইল ফোনের বয়স বাড়ার সাথে সাথে কার্যক্ষমতা ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে । এমনকি কমে যাচ্ছে আপনার মোবাইল ফোনের গতিও । আপনি হয়তো ভাবছেন আপনার মোবাইল ফোনটি হয়তো আর চলবে না, হয়তো  আপনাকে নতুন মোবাইল ফোন কিনতে হবে । আপনার সুবিধার্থে বলছি আমাদের আজকে ব্লক করছি শুধুমাত্র আপনাদের জন্য । আমাদের আজকে ব্লগ পোস্ট থেকে আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব কিভাবে আপনার বর্তমান ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটির গতি বাড়িয়ে তুলবেন খুব সহজেই । চলুন দেরি না করে শুরু করছেন ।

 

কিভাবে মোবাইলের গতি বাড়ানো যায়

 

✅নিয়মিত সিস্টেম আপডেট করুন – প্রত্যেকটি মোবাইল ফোনের জন্যই সিস্টেম হল তার প্রাণ । অপারেটিং সিস্টেম ব্যতীত মোবাইল ফোন মনে হবে যেন ধুধু এক মরুভূমি । বর্তমান বিশ্বে দুই ধরনের অপারেটিং সিস্টেম বিদ্যমান একটি হলো আইওএস এবং অপরটি হলো অ্যান্ড্রয়েড । আপনার নিজের শরীরকে চলার জন্য যেমন আপনি নিয়মিত খাবার খাচ্ছেন । ঠিক তেমনি আপনার ফোন দিতে সচল রাখার জন্য নিয়মিত খাবার প্রদান করতে হবে । যেহেতু একটি মোবাইল ফোনের প্রান হলো অপারেটিং সিস্টেম । আর তাই আপনাকে খাবার অপারেটিং সিস্টেমকে দিতে হবে । এই দুই ধরনের অপারেটিং সিস্টেমকে খাবার হিসেবে আপনাকে নিয়মিত তা আপডেট করতে হবে । নিয়মিত এই দুই অপারেটিং সিস্টেম নানা ধরনের আপডেট প্রদান করে । আর এই আপডেট অবশ্যই আপনার মোবাইল ফোনে ইন্সটল করতে হবে । নিয়মিতভাবে আপনার মোবাইল ফোনের অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করলে আপনার ফোনের গতি পূর্বের তুলনায় অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে । তাই আপনার মোবাইল ফোনের গতি বৃদ্ধি করার জন্য অবশ্যই নিয়মিত ভাবে আপনার মোবাইল ফোনের অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করুন ।

 

✅মোবাইল ফোনের স্টোরেজ পরিষ্কার করুন – প্রত্যেকটি মোবাইলের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ স্টোরেজ থাকে । যেখানে মোবাইলের সব ধরনের ডাটা জমা থাকে । আপনার অজান্তেই আপনার মোবাইল ফোনে স্টোরেজে নানা ধরনের অপ্রয়োজনে ডাটা জমা থাকে । আর তাই আপনার মোবাইল ফোনের স্টোরেজ ধীরে ধীরে কমে যায় আর কমে যায় আপনার মোবাইল ফোনের গতিও । আর তাই নিয়মিতভাবে আপনার মোবাইল ফোনের স্টোরেজ অবশ্যই পরিষ্কার করুন । কিন্তু আপনাকে স্টোরেজ পরিষ্কার করার আগে আপনার প্রয়োজনীয় ডাটা গুলো অবশ্যই ব্যাকআপ নিতে ভুলবেন না । না হলে আপনি পড়ে যেতে পারেন মহা বিপদে । কেননা প্রযুক্তিগত কারণে আমরা মোবাইলে নানা ধরনের ডাটা সেভ করে রাখি যে আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে লাগে । তাই মনে করে অবশ্যই সে সকল ডাটাগুলো ব্যাকআপ নিয়ে নেবেন ।

 

✅অপ্রোজনীয় সফটওয়্যার ইন্সটল করবেন না – বর্তমান গুগল প্লে স্টোর কিংবা অ্যাপ স্টরে নানা ধরনের সফটওয়্যার সংরক্ষিত আছে । তা আমরা অনেক সময় আমাদের প্রয়োজন অনুসারে ডাউনলোড করে ইন্সটল করে ফেলি । আমাদের প্রয়োজন মেটানোর পরও আমরা সেই অ্যাপস গুলো মোবাইলে রেখে দেয় । আর এই অ্যাপস গুলো আমাদের মোবাইল ফোনের স্টোরেজে বিরূপ প্রভাব ফেলে । তাই আমরা যখন অ্যাপ ইন্সটল করে আমাদের কাজ গুলো সেরে ফেলি সাথে সাথেই সেই অ্যাপস গুলো মনে করে আনইন্সটল করে দেয়া উচিত । এছাড়াও আমরা যখন নতুন একটি মোবাইল ফোন ক্রয় করি তখন বাই ডিফল্ট কিছু সফটওয়্যার ইন্সটল করা থাকে । এর মধ্যে কিছু সফটওয়্যার থাকে আমাদের প্রয়োজনীয় এবং কিছু সফটওয়্যার থাকে আমাদের অপ্রজনীয় । তাই আপনার প্রয়োজনীয় অ্যাপস গুলো রেখে বাকি সফটওয়্যার গুলো অবশ্যই আনইন্সটল করে দিন অর্থাৎ ডিলিট করে দিন ।

 

✅মোবাইল অ্যাপস এর ক্যাশ ডিলিট করা – আমরা যখন মোবাইল ফোন ইউজ করি তখন প্রত্যেকটি সফটওয়ারের বিপরীতে মোবাইল ফোনের স্টোরেজে ক্যাশ জমা হয়ে থাকে । এ কাশ জমা হওয়ার অন্যতম কারণ হল আমরা যখন একই সফটওয়্যার বারবার ইউজ করি তখন তা সহজেই ওপেন করতে ক্যাশ সাহায্য করে । তাই মাঝেমধ্যেই আমাদের মোবাইল ফোনে সেই ক্যাশগুলো ডিলিট করা উচিত । প্রতিটি মোবাইল ফোনের ক্যাশ মোবাইল ফোনকে গতিকে অনেকাংশে কমিয়ে দেয় । তাই আমাদের মোবাইল ফোনের গতি বাড়ানোর জন্য ক্যাশের ব্যবহার ভালোভাবে বুঝতে হবে ।

 

✅মেমোরি কার্ড ব্যবহারে সচেতনতা – মেমোরি কার্ড দুধরনের হয়ে থাকে । একটি হল ইন্টার্নাল মেমোরি কার্ড অপরটি হলো এক্সটার্নাল মেমোরি কার্ড । বর্তমান মোবাইল ফোন তৈরি প্রতিষ্ঠানগুলো ইন্টারনাল মেমরি তারপর বেশ জোরালোভাবে পদক্ষেপ গ্রহণ করছে । তাই হয়তো অনেকেরই এক্সটার্নাল মেমোরি কার্ডে প্রয়োজন পড়ে না । তবুও যারা এক্সটার্নাল মেমোরি কার্ড ব্যবহার করছেন তাদের অবশ্যই সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে । কখনোই নিম্নমানের মেমোরি কার্ড ইউজ করবেন না । নিম্নমানের মেমোরি কার্ড গুলো খুব সহজেই আপনার ফোনের গতি কে কমিয়ে দেয় । আর আপনি যে মেমোরি কার্ড ইউজ করছেন তা যেখানে সেখানে ব্যবহার করবেন না । এতে করে আপনার মেমোরি কার্ডে ভাইরাস সংক্রমণের প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে । আর সেই মেমোরি কার্ড থেকে যখন ভাইরাস আপনার মোবাইল ফোনে প্রবেশ করবে তখন আপনার মোবাইল ফোনে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেবে এবং আপনার মোবাইল ফোন স্লো হয়ে যাবে ।

 

✅ওয়ালপেপার ও ব্রাইটনেস – মোবাইল ফোনের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে ওয়ালপেপার এর বিকল্প নেই । আরে ওয়ালপেপার সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে আমরা ব্রাইটনেস এর ব্যবহার করে থাকি । ওয়ালপেপার ব্যাপারে অবশ্যই আমাদের সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে । আমাদের মধ্যে এমন অনেকে আছেন যারা লাইভ ওয়ালপেপার ব্যবহার করে থাকেন । লাইভ ওয়ালপেপার আমাদের ফোনের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করল তা আমাদের ফোনের গতি কে কমিয়ে দেয় । তাই মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে বলছি লাইভ ওয়ালপেপার গুলো ব্যবহার থেকে আমাদের বিরত থাকাই ভালো । আর মোবাইল ফোনের ব্রাইটনেস সব সময় হাই করে রাখবেন না । কেননা এই ব্রাইটনেস যেমন আপনার মোবাইল ফোনের ব্যাটারির উপর প্রভাব ফেলে ঠিক তেমনি আপনার মোবাইল ফোনের তাপ বৃদ্ধি করে । আর আপনার মোবাইল ফোন যখন গরম হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার মোবাইল ফোনের গতি কমে যাবে ।

 

✅ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপস মুছে ফেলুন – আমরা বর্তমান যুগে প্রতিনিয়ত অনেক ধরনের মোবাইল অ্যাপস ইউজ করে থাকি । আর এই মোবাইল অ্যাপস গুলো ব্যবহারের পর আমরা সেগুলো মুছে ফেলতে ভুলে যাই । আর ঠিক তখনই সেই অ্যাপস গুলো আমাদের মোবাইল ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে ওপেন অবস্থায় থাকে । ফলে সেই অ্যাপস গুলো নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা কিংবা মেমোরি ধরে রাখে । এতে করে আমাদের অপারেটিং সিস্টেম থেকে শুরু করে ব্যাটারি পর্যন্ত সেই অ্যাপসগুলো প্রভাব বিস্তার করে । তাই ব্যবহারকারীকে অবশ্যই অ্যাপস ব্যবহারের পর ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপস গুলো মুছে ফেলতে হবে । আর তা না হলে মোবাইল ফোনের গতি কমে যাবে এটাই স্বাভাবিক ।

 

প্রত্যেক মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী কে উপরোক্ত বিষয়গুলো মাথায় রেখে এই মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে হবে । তা না হলে তাদের মোবাইল ফোনের গতি ধীরে ধীরে কমে যাবে । আমাদের আজকে এই ব্লগ পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *