কিভাবে যৌবন কাল ধরে রাখা যায় ( easy way to keep youthful )

প্রত্যেকটা মানুষের জীবনে বার্ধক্য কাল চলে আসবে এটাই স্বাভাবিক । কোন মানুষ চাইলেও আজীবন তার যৌবন কাল ধরে রাখতে পারবেনা । যদিবা প্রত্যেকটি মানুষই চান তার যৌবন কাল বৃদ্ধি করতে । মানুষের যখন বার্ধক্য কাল চলে আসে তখন প্রত্যেকটি মানুষের চান আবার যৌবনকালে ফিরে যেতে । যৌবনকালে যেন এক অন্যরকম আমেজ প্রত্যেকের মনেই থাকে ‌। যৌবনকালের কথা চাইলেও কেউ কখনোই ভুলতে পারবেনা । আর তাইতো সকলেই চান সেই যৌবনকালে ফিরতে । মানুষ বয়সে কখনও বার্ধক্য এনা বাদ্য চলে আসে মনের ভেতর থেকে । একটা মানুষের যখন ধীরে ধীরে বয়স বাড়তে থাকে তখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেই মানুষটির মনে বার্ধক্যের প্রভাব বিস্তার করতে থাকে । আর তাইতো কবি কাজী নজরুল ইসলাম খুব সহজেই বলেছেন ” বার্ধক্যকে সবসময় বয়সের ফ্রেমে বেঁধে রাখা যায় না।বহু ‍যুবককে দেখিয়াছি যাহাদের যৌবনের উর্দির নিচে বার্ধক্যের কঙ্কাল মূর্তি। আবার বহু বৃদ্ধকে দেখিয়াছি- যাঁহাদের বার্ধক্যের জীর্ণাবরণের তলে মেঘলুপ্ত সূর্যর মতো প্রদীপ্ত যৌবন। যাহা পুরাতনকে, মিথ্যাকে, মৃত্যুকে আঁকড়াইয়া পড়িয়া থাকে তাহাই বার্ধক্য ” । আমাদের আজকের এই ব্লগ পোস্ট থেকে আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব আপনি কিভাবে চাইলেই আপনার মনের দিক থেকে নিজের যৌবন কাল ধরে রাখতে পারবেন । চলুন তাহলে দেরি না করে শুরু করা যাক ।

 

যৌবন কাল ধরে রাখার সহজ উপায়

 

✅সূর্য থেকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করুন – সূর্যের উত্তাপ আমাদের প্রত্যেকের জন্যই অত্যন্ত ক্ষতিকর । আমরা প্রত্যেকেই কাজের জন্য সারাক্ষন ঘরের বাহিরে অবস্থান করে থাকি । আর এই ঘরের বাহিরে থাকার কারণে সূর্যের তাপ সরাসরি আমাদের শরীরে এসে পৌঁছায় । যা আমাদের স্কিনের উপর খারাপ প্রভাব বিস্তার করে । যেহেতু আমাদের কাজের কারণে বাহিরে যেতেই হবে এর কোন বিকল্প নেই । তাই আমাদের সূর্য থেকে বাঁচার জন্য কিছু একটা করতে হবে । আর তা হল আমরা যখন বাসা থেকে বাহিরে বের হব তখন অবশ্যই সূর্যের আলো থেকে বাঁচার জন্য আমরা ছাতা ব্যবহার করব । সম্ভব হলে আমরা প্রত্যেকেই সানস্ক্রিন ব্যবহার করে বাহিরে যাওয়ার চেষ্টা করব । সূর্যের তাপ থেকে বাচার জন্য আপনি একদমই সূর্যের আলো থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখবেন এরকম কিছু নয় । প্রতিদিন সকালে অন্তত 10 থেকে 15 মিনিটের জন্য সূর্যের আলো নেবার চেষ্টা করবেন । যা আপনার শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরী ।

 

✅চুল দাড়ি নিয়মিত পরিষ্কার করুন – আমাদের যৌবন কাল ধরে রাখার জন্য অবশ্যই চুল ও দাড়ির যত্ন নিতে । আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা চুল ও দাড়ির ন্যূনতম কোন যত্ন গ্রহণ করি না । ছেলেদের মধ্যে এই বিষয়টি খুব বেশি লক্ষ্য করা যায় । আর তাইতো ছেলেদের অল্পতেই বার্ধক্য চলে আসে । বর্তমান যুগে ছেলেদের দাড়ি রাখাটা একটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে । আপনি দাড়ি রাখছেন বেশ ভালো কথা কিন্তু আপনার দাড়ি গোঁফ নিয়ম করে পরিষ্কার করুন এবং দাড়ি-গোঁফের নির্দিষ্ট সাইজ মেন্টেন করার চেষ্টা করুন । এবার আসা যাক মেয়েদের কথায় । প্রত্যেকটি মেয়ের চুল খুবই পছন্দের । চুল মেয়েদের রূপ যৌবন দুটি অন্যতম প্রতীক । প্রতিটি মেয়েই চায় তাদের চুল কে সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে । কিন্তু কিছু কিছু মেয়ে আছে যারা চুলের যত্ন নেন না । ফলে তাদের চুল এলোমেলো লাগে । এ কারণে অনেককে বয়স্ক মনে হতে পারে । আপনি যদি চুলের যত্ন সঠিক ভাবে না নেন তাহলে অকালেই আপনার চুল পড়ে যাবে এবং চুল সাদা হয়ে যাবে । তাই বার্ধক্য এড়াতে আর যৌবন কাল ধরে রাখতে অবশ্যই আমাদের চুলের প্রতি যত্নবান হতে হবে ।

 

✅মেকআপ করুন – মেকআপ করার কথা শুনেই হয়ত মেয়েদের মুখে হাসি চলে আসতে পারে । কারণ প্রত্যেকটি মেয়ে মেকআপের সাথে খুবই পরিচিত এবং তারা মেকআপ করতে ভীষণ ভালোবাসেন । বর্তমান যুগে এমন কোন মেয়ে হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবে না যে সে কোনদিনও মেকআপ করে নি । মেয়েরা মূলত মেকআপ করে নিজেকে আরো সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলতে । কিন্তু এই মেকআপ করতে গিয়ে এমন অনেকেই রয়েছেন যারা নিজের চেহারাকে আরও বিশ্রীভাবে ফুটিয়ে তোলে । যা তাদেরকে দেখতে অনেক বয়স্ক বলেও মনে হতে পারে । তাই প্রত্যেক কে মেকাপের দিকে বেশ সচেতন হতে হবে । মেকআপ করার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে কখনোই যেন আপনার মেকআপ অসৌন্দর্যের কারণ না হয় । মেকআপ করুন তখন যখন আপনি আপনার মেকআপ এর দ্বারা নিজেকে আরো সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন । আপনি যদি মেকআপ এ খুব বেশি পারদর্শী না হয়ে থাকেন তাহলে নিচের থেকে চেষ্টা করতে যাবেন না । পারলে পার্শ্ববর্তী কোনো ভালো পার্লারে গিয়ে মেকাপ নেবার চেষ্টা করুন ।

 

✅দাঁতের যত্ন নিন – আপনার সাদা ও মজবুত দাঁত আপনাকে আরো ইয়াং এবং অন্যের কাছে অ্যাট্রাকশন করতে সহায়তা করে । আপনাকে অবশ্যই আপনার দাঁতের যত্নের জন্য নিয়মমাফিক কিছু কাজ করে যেতে হবে । তা না হলে আপনার দাঁতে হলদে ভাব চলে আসবে এমনকি আপনার দাঁত পড়ে যেতে পারে । আর আপনার দাঁত যখন পড়ে যাবে তখন আপনাকে বার্ধক্যের মত লাগবে এটাই স্বাভাবিক । আপনার দাঁতের যত্নে অবশ্যই আপনাকে নিয়ম করে খাবারের পর ব্রাশ করতে হবে । খাবারের পর ব্রাশ না করলে আপনি যেসব খাবার খেয়েছেন তারপর দাঁতের ফাঁকে ঢুকে আপনার দাঁতের ক্ষতি করবে । তাই দাঁতের ক্ষতি এড়াতে অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত ভাবে ভালো টুথপেস্ট দিয়ে ব্রাশ করতে হবে ।

 

✅চুলে কালার করুন – বর্তমানে খুব কম বয়সেই অনেকের চুল পেকে যায় । যা দেখলে সকলের মনে হতে পারে ছেলেটি বা মেয়েটি অনেক বয়স হয়েছে । এরূপ মন্তব্যে আপনার নিজেকে বাধ্যক্য বলেও মনে হতে পারে । তাই সময়ের সাথে সাথে আপনার চুলের যত্ন নেওয়া উচিত । বর্তমান সময়ে অনেকেই চুলে কালার করে থাকে । কেউবা শখে আবার কেউবা সাদা চুল কালো করার তাগিদে । আপনার যদি চুল পেকে যায় অবশ্যই আপনি চুলে কালার করুন অথবা চাইলেই আপনি মেহেদি ব্যবহার করতে পারবেন । এছাড়াও বর্তমান যুগে বিভিন্ন ধরনের ট্রেন্ডি কালার রয়েছে । যা আপনার চুলকে অন্যের কাছে আরও চমকপ্রদভাবে প্রকাশ করবে ।

 

✅পোশাক নির্বাচনে সতর্ক – আপনি যদি নিজের যৌবন কাল ধরে রাখতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে পোশাক নির্বাচনের জন্য সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে । এমন অনেক পোষাকই রয়েছে আপনি যতই কিশোর হোন না কেন তারপরও আপনাকে বয়স্ক লাগতে পারে । আবার এমন পোশাক রয়েছে যে পোশাক পড়লে আপনিই বার্ধক্য হলো আপনাকে ইয়াং মনে হতে পারে । আপনি যখন ভাল কাপড়-চোপড় ও ভালো রঙের কাপড় পরিধান করবেন তখন আপনার নিজের মনের ভেতর থেকেও অন্যরকম এক অনুভুতির সৃষ্টি করবে । যা আপনার বার্ধক্য কমাতে সহায়তা করবে । তাই পোশাক নির্বাচনে অবশ্যই সতর্ক হোন । পোশাক আপনার রুচির প্রকাশ করে । আপনি মানুষটি ঠিক কি রকম তা পোশাকেও বোঝা যায় । কিন্তু পোশাকে আপনার রুচির প্রকাশ করতে গিয়ে আপনার অনেক অর্থ খরচ করতে হবে এমন কোন কথা নেই । ভালো পোশাক মানে দামি কোনো পোশাক নয় । ভালো পোশাক মানে মানসম্মত ভালো রংয়ের এবং আপনার শরীরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এমন সব পোশাক কী বোঝানো হয় । তাই পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে এমন সব পোশাক নির্বাচন করুন যা পরিধানে আপনি অবশ্যই নিজেকে কমফোর্ট মনে করবেন ।

 

✅ব্যায়াম করুন – নিয়মিত ব্যায়াম করা আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত । নিয়মিত ব্যায়াম করলে আমাদের প্রত্যেকের শরীর ভালো থাকে । শারীরিক সুস্থতার জন্য অবশ্যই আমাদের নিয়ম করে ব্যায়াম করতে হবে । আপনার ব্যস্ততার কারণে হয়তো আপনি ব্যায়াম করতে সময় পান না । আর এ কারণেই আপনার বার্ধক্য ধীরে ধীরে আপনার সন্নিকটে চলে আসতে পারে । তাই সারাদিন ব্যায়াম করার সময় না পেলেও ঘুম থেকে উঠে অন্তত পনের বিশ মিনিটের জন্য হলেও ব্যায়াম করুন । এ 15 – 20 মিনিট আপনি চাইলে বাইরে থেকেও হেঁটে আসতে পারেন । আপনি যখন সকালে বাহিরে হাঁটতে যাবেন তখন কার বাতাস আপনার শরীরের জন্য অনেক উপকারে আসবে । আঞ্চলিক ভাষায় বলা হয় “সকালবেলার হাওয়া লক্ষ টাকার দাওয়া “। এর অর্থ হল এই সকাল বেলার বাতাস লক্ষ টাকার ওষুধের সমান ।

 

✅পর্যাপ্ত ঘুমান – বর্তমানে প্রত্যেকটি মানুষের মাঝে রাত জেগে মোবাইল ব্যবহারের অভ্যাস টি দিনে দিনে বেড়েই চলেছে । আর রাত জেগে মোবাইল ব্যবহারের ফলে মানুষের ঘুমের পরিমাণ কমে আসছে । একটি মানুষ যখন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমাবে না সে মানুষের বার্ধক্য খুব তাড়াতাড়ি চলে । তাই নিজের যৌবন কাল ধরে রাখতে অবশ্যই আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমোতে হবে । প্রত্যেকটি মানুষকে অবশ্যই প্রতিদিন কমপক্ষে 6 থেকে 8 ঘণ্টা ঘুমাতে হবে । এর বেশি ঘুমালে আপনার শারীরিক ক্ষতিও হতে হবে সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন । আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা দুপুরে ঘুমোতে খুব বেশি পছন্দ করি । তাদের উদ্দেশ্যে বলছি আপনাকে দুপুরের ঘুম পরিহার করতে হবে । না হলে আপনি শারীরিকভাবে খুব বেশি মোটা হয়ে যেতে পারেন । আপনি যখন খুব মোটা হয়ে যাবেন তখন অল্পতেই আপনাকে বয়স্ক মনে হবে । তাই আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমানো খুব বেশিও নয় আবার একেবারে কম নয় ।

 

✅প্রচুর পানি পান করুন – পানি পান করার সাথে যৌবন ধরে রাখার কোনো সম্পর্ক নেই আপনার এরকমটা মনে হতে পারে । কিন্তু আপনার জন্য বলছি পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি আপনার শারীরিক স্বাস্থ্যের জন্য খুবই জরুরী । কিন্তু সারাদিন পানি খেয়ে পেট ফাটিয়ে ফেলতে হবে এরকম কোন কথা নেই । আবার একবার এই সারাদিনের পানি খাবেন এরকমটা নয় । অল্প অল্প করে মাঝেমাঝেই পানি পানের অভ্যাস নিজের মধ্যে গড়ে তুলুন । আপনি যখন পানি পান করবেন তখন আপনার নিজের মনের ভেতর থেকেই সতেজ ভাবটা চলে আসবে । এছাড়াও পানি আপনার স্কিনের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করবে ।

 

✅পুষ্টিকর খাবার খান – আপনার নিজের শরীরকে সুস্থ রাখতে এবং যৌবন কাল ধরে রাখতে আপনাকে অবশ্যই পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে । এর কোন বিকল্প নেই । পুষ্টিকর খাবার বলতে আপনাকে সারাক্ষণ বাস মাংস খেতে হবে এমন কোন কথা নেই । পুষ্টিকর খাবার বলতে আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমাণ সবুজ শাক-সবজি ফলমূল এবং সম্ভব হলে মাছ মাংস খেতে হবে । তাই বলে সারাক্ষণ খেতে হবে এমন কোন কথা নেই । আপনাকে জাংক ফুড এড়িয়ে চলতে হবে । আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা রেস্টুরেন্টে খেতে পছন্দ করি । তাদের জন্যই বলছি রেস্টুরেন্টের খাবার আপনার শারীরিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ একটি বিষয় । যথাসম্ভব রেস্টুরেন্টের খাবার থেকে নিজেকে দূরে রাখুন ।

 

✅ধূমপান থেকে বিরত থাকুন – প্রত্যেকটি সিগারেটের প্যাকেটে লিখা থাকে যে ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর । এ লেখাটি দেখবার পড়েও যারা ধূমপান করেন তারা নিজেকে ধূমপান থেকে বিরত রাখতে পারেন । মানুষের জন্য ধূমপান মারাত্মক একটি নেশা । এ নেশা থেকে বেরিয়ে আসা বেশ কঠিন । কিন্তু নিজের শারীরিক সুস্থতার জন্য প্রত্যেকেরই উচিত ধূমপান থেকে নিজেকে বিরত রাখা । যারা ধূমপান করেন তাদের হয়তো মনে হতে পারে ধূমপান আপনার কোন ক্ষতি তো করছে না । ধূমপান আপনার শরীরের দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতির কারণ । এছাড়াও ধূমপান আপনার বার্ধক্যের কারণও বটে । তাই যৌবন কাল ধরে রাখতে অবশ্যই ধুমপানকে না বলুন ।

 

✅পরিষ্কার রাখুন – বার্ধক্যের ছাপ মূলত স্কিনের উপর বেশি পড়ে । বয়স হওয়ার সাথে সাথেই আপনার আমার সবার হাত ও মুখের চামড়া আস্তে আস্তে লুজ হতে শুরু করে । সে সময় মুখের চামড়া যেন জড়ো হতে লাগে । আর এইসব কিছু দেখেই একজন বার্ধক্য ও যৌবনকালের মানুষের মধ্যে পার্থক্য খুঁজে পাওয়া যায় । তাই বার্ধক্যে শুরুতেই মুখমন্ডল হাত-পা ভালোভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার চেষ্টা । মুখমন্ডল পরিষ্কার এর জন্য ভালো একটি ব্র্যান্ডের ফেসিয়াল ক্রিম ব্যবহার করুন । আপনি যখন আপনার হাত মুখ পরিষ্কার রাখবেন আপনাকে সতেজ মনে হবে । আর বার্ধক্যে ভাবটাও আপনার মনের দিক থেকে কেটে যাবে । এছাড়াও যৌবন কাল ধরে রাখার জন্য অবশ্যই আপনাকে সার্বিক দিক থেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে । নিয়মিত পরিষ্কার ভাবে গোসলের চেষ্টা করবেন । ভালোভাবে গোসল এর ফলে আপনি নানা ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পাবেন । আর ইসলামিক দৃষ্টিকোণ থেকে বলা হয়ে থাকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ ।

 

✅হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন – আপনার শারীরিক সুস্থতা এবং মানসিক প্রশান্তির জন্য অবশ্যই আপনাকে হাসিখুশি থাকতে হবে । প্রত্যেকটি মানুষের জীবনে সমস্যা থাকে । তাই বলে সেই সমস্যা নিয়ে সারাক্ষণ মন খারাপ করে থাকা । কিংবা সেই সমস্যা নিয়ে সারাক্ষণ চিন্তাও করা যাবে না । আপনি সারাক্ষণ যদি মানসিক চিন্তায় নিজেকে নিয়োজিত রাখেন তাহলে আপনার পুরো শরীরে একটা মানসিক চিন্তার ছাপ পড়ে যাবে । আর এই বিষয়টা আপনার বার্ধক্যও বাড়িয়ে দেয় ।

 

পরিশেষে একটা কথাই বলবো আপনার যৌবন কাল ধরে রাখতে অবশ্যই আপনাকে শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে হবে । তা না হলে আপনি ধীরে ধীরে বার্ধক্যের দিকে ধাবিত হবেন । তাই নিজের শরীরের যত্ন নিন । আশা করি আপনারা জীবন সুখের এবং সুন্দর হোক । আমাদের আজকের এই ব্লগ পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *