বাগান করার মাধ্যমে নিজের স্বাস্থ্যের উন্নতির উপায় ( How to improve your health through gardening )

আপনি আমি, আমাদের প্রত্যেকেরই বাগান খুবই পছন্দের । বাগান দেখতে কার না ভালো লাগে । বাগান দেখলেই মনটা ভালো হয়ে যায় । অবশ্য সে বাগান যথার্থ হওয়া চাই । নাহলে আবার বাগান দেখলে অনেকের মেজাজ খারাপ হয়ে যেতে পারে । আপনি একটি বাগান দেখছেন । সে বাগান দেখতে হয়তো আপনার খুব ভালো লাগছে । কিন্তু একটা বাগান দেখতে যতটা সহজ তার থেকে সেই বাগান তৈরি করাটা আরো বেশি কঠিন । বিশ্বাস না হলে একটি বাগান তৈরি করে দেখুন কতটা কষ্টসাধ্য ব্যাপার এই বাগান করা । বাগান করাটা মূলত এক ধরনের শখের বিষয় । এইসব সকলের থাকে না আবার কিছু কিছু মানুষ আছেন যারা এই শখের বসে সবকিছুই ছাড়তে বসেছেন । তাই বলে বাগান করাটা যে খারাপ কোন শখ তা কিন্তু নয় । আপনি যখন বাগান করবেন আপনার মন খুব উৎফুল্ল থাকবে । বাগান করার সৌখিন মানুষ গুলো ভালো ব্যক্তিত্বসম্পন্ন হয়ে থাকেন । সে মানুষগুলো মনের দিক থেকেও অসম্ভব ভালো হয়ে থাকেন । তাই বাগান করার বাগান নিজের মধ্যে ধারণ করাটা আমাদের প্রত্যেকের উচিত । বাগান করা বলতে শুধু ফুলের বাগান করবেন এরকম কিছু নয় আপনি চাইলে শাক সবজির বাগান করতে পারেন । যা পরবর্তীতে আপনার খাবারের যোগান দেয় । আপনি চাইলেই এই   করতে পারবেন । আমাদের কথা কি বিশ্বাস হলো না তাহলে নিচের গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা গুলো ভালো করে মনোযোগ দিয়ে পড়ুন । চলুন তাহলে দেরি না করে শুরু করা যাক ।

 

কিভাবে বাগান করার মাধ্যমে স্বাস্থ্যের উন্নতি করা যায়

 

✅শরীরকে একটু গরম করে নিন – বাগান করার পূর্বে অবশ্যই আপনার শরীরকে একটু গরম করে দিন । এ বিষয়টি বাগান করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ । আর নিজের শরীরকে গরম করে নিলে আপনি অনায়াসেই কাজে মনোযোগ হতে পারবেন না হলে আপনি কাজ থেকে মাঝে মাঝে নিজেকে হারিয়ে ফেলবেন । আর নিজের শরীরকে গরম করার জন্য আপনি ছোটখাটো ব্যায়াম করে নিতে পারেন । যেমন ধরুন আপনার হাত পা কোমর মাথা ইত্যাদির ছোটখাটো অনেক ব্যায়াম যা আপনি চাইলে করতে পারেন । আপনার বাগানের কাজ শুরুর পাঁচ থেকে দশ মিনিট আগে এরকম ব্যায়াম আপনি করতে পারেন । তা আপনার কাজের এনার্জি বহুগুণে বাড়িয়ে দেবে ।

 

✅বাগানে প্রতিনিয়ত কাজ করুন – আপনি শখ করে হয়ত বাগানের কাজ শুরু করবেন । দুদিন পর আর হয়তো আপনার বাগান নাও ভালো লাগতে পারে । কিন্তু তাই বলে বাগানে কাজ ছেড়ে দিলে চলবে না । আপনি যদি দুদিন বাগানের কাজ করে ছেড়ে দেন তাহলে আপনার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘুরতে পারে । হঠাৎ আপনি বাগানে কাজ ছেড়ে দিলে আপনার শরীরের ব্যথা অনুভব হতে পারে । এতে করে আপনি শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করবেন । ফলে আপনার অন্য কোন কাজে আর মন বসবে না । তাই আপনি যখন বাগানের কাজ শুরু করবেন তা ধারাবাহিকভাবে করে যাবা প্রচেষ্টা রাখতে হবে । বাদ দিয়ে দিয়ে কাজ করলে চলবে না । আপনি যখন প্রতি নিয়ত ও নিয়ম মাফিক আপনার বাগানে কাজ পরিচালনা করবেন আপনাকে বাগান উন্নতি । আজ আপনার বাগানে কাজের গতি বহুগুণে বাড়িয়ে দেবে । তাই নিয়ম করে প্রতিদিন অন্তত 30 মিনিটের জন্য হলেও বাগানের কাজ পরিচালনা করবেন । এতে করে আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক হতে সহায়তা করবে ।

 

✅শরীরের মুভমেন্ট পরিবর্তন করুন – আপনার শরীরের স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য অবশ্যই আপনার শরীরের মুভমেন্ট অত্যন্ত জরুরী । সারাক্ষণ বসে শুয়ে থাকলে আপনার শরীর স্বাস্থ্যের কোনটারই উন্নতি সাধন হবে না এটাই স্বাভাবিক । তাই নিয়ম করে হলো শরীরের মুভমেন্ট পরিবর্তনের চেষ্টা করুন । আপনি যখন বাগানের কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন তখন আপনাকে নানা ধরনের কাজ করতে হবে । আপনি তখন একই কাজ বারবার করবেন না । আপনি তখন চাইলেও বসে থাকতে পারবেন না । আর যদি শখের বাগান শুরু করে দিয়ে বসে থাকেন তাহলে বাগানে কিছুই থাকবে না । আর তাই আপনি চাইলেও বসে থাকার আপনারা সুযোগ থাকবে না । বাগানের কাজের জন্য হলেও আপনাকে এদিক-সেদিক ছোটাছুটি করতে হবে । আর ঠিক তখন আপনার শরীরে নানা অঙ্গ-প্রতঙ্গের মুভমেন্ট হবে ।

 

✅নিয়ন্ত্রণ করুন – আমাদের মাঝে এমন অনেকেই আছেন যাদের কাজে নিয়ন্ত্রণ নামটা বেশ কঠিন বলে মনে হতে পারে । তারা ঠিকঠাক নিয়ন্ত্রণ করে কোন কাজই করতে পারেন না । আর যদি সেটা ভারী কাজ হয়ে থাকে তাহলে তো কথাই নেই । আপনি যখন বাগানের কাজে নিয়োজিত থাকবেন তখন আপনাকে অনেক ধরনের ছোট-বড় কাজে নিজেকে ব্যস্ত রাখতে হতে পারে । এমন অনেক সময় আসতে পারে যখন আপনাকে ভারী কোন বস্তু এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থানান্তর করতে হবে । ঠিক তখন আপনাকে নিয়ন্ত্রণ করা শিখতে হবে । যেমন ধরুন লিফটিং এর কাজগুলো অবশ্যই আপনাকে সাবধানতার সাথে করতে হবে । তা না হলে যেকোনো সময় আপনার পা কিংবা কোমরে আঘাত লাগতে পারে । তাই ভারী কোন বস্তু যখন আপনি তাকে স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যাবেন তখন অবশ্যই আপনাকে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে । আর যখন আপনি তা সঠিকভাবে করতে পারবেন তা আপনার শরীরের উন্নত জন্য কাজে লাগবে । আপনি যখন ভারী কোন বস্তু উঠাবেন তখন আপনার পায়ের পেছনের মাংসপেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে । যা আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা করবে ।

 

✅পরিশ্রমী হবার চেষ্টা করুন – আপনারা তো এখন মনে হতে পারে খুব বেশি পরিশ্রম করলে আপনার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটবে । কিন্তু আমি বলব আপনার এই ধারণা একেবারেই ভুল । স্বাস্থ্যের উন্নতি মানে এই নয় যে আপনি অনেক বেশি মোটা হয়ে যাবেন । স্বাস্থ্যের উন্নতি মানে আপনাকে অবশ্যই শারীরিকভাবে সুস্থ এবং ফিট থাকতে হবে । আর তবে আপনি নিজেকে শারীরিকভাবে সুস্থ বলতে পারবেন । আর আপনি যদি পরিশ্রম না করে বাসায় বসে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়বেন । ফলে আপনার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটবে এটাই স্বাভাবিক । তাই স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য নিয়ম করে হলেও আপনাকে প্রতিদিন কিছু সময়ের জন্য পরিশ্রম করতে হবে । আর নিয়মমাফিক পরিশ্রমের উৎকৃষ্ট উদাহরণ হল বাগানে কাজ করা । আপনি যখন একটি বাগান থাকবে তখন আপনাকে নিয়মিত ভাবে সে বাগানে শ্রম দিতে হবে । আর যখন আপনি আপনার বাগানে নিয়মিত পরিশ্রম করবেন তখন আপনি নিজেই শারীরিকভাবে অসুস্থতা বোধ করবেন ।

 

✅শাক সবজির চাষ করুন – আমাদের শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে হলে অবশ্যই সবুজ শাকসবজি প্রচুর পরিমাণে খেতে হবে । আর আমরা যদি শাকসবজি বাদ দিয়ে শুধু মাছ মাংস খায় তাহলে আমাদের নানা পুষ্টি ঘাটতি দেখা দেবে । তাই আমরা যখন শখের বাগানে সবুজ শাকসবজি চাষ করব তা আমাদের পুষ্টি ঘাটতি পূরণ করবে । সবুজ শাকসবজি আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি উপাদান । যা না খেলে হয়তো আমাদের কারোরই পক্ষে পুরোপুরি ফিট থাকা সম্ভব নয় । আর আপনি যখন আপনার বাগানের সবুজ শাকসবজি খাবেন তা থাকবে ফরমালিনমুক্ত । অপরদিকে সেই শাক-সবজি যখন আপনি বাজার থেকে কিনে আনবে তাতে থাকবে নানারকম ফরমালিন । ফলে বাজারে সেইসকল শাকসবজি খেলে আপনি হয়ে যেতে পারে অসুস্থ । তাই বাগানের শাকসবজি যখন আপনি খাবেন তখন আপনি এগুলো থেকে পুরোপুরি ভাবে বেঁচে যাবে । ফলে শাকসবজির পরিপূর্ণ পুষ্টি গুণ আপনার শরীরের ভিতরে প্রবেশ করবে । আর আপনি থাকবেন শারীরিকভাবে সুস্থ ।

 

✅পরিকল্পনা করুন – আমাদের প্রত্যেকেরই কোন কিছু শুরু করার আগে অবশ্যই পরিকল্পনা থাকাটা প্রয়োজন । পরিকল্পনা ছাড়া কেউই কোন কাজে সফলতা আনতে পারেনি । তাই বাগান করার জন্য অবশ্যই আপনাকে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে । আপনি পরিকল্পনা ছাড়াই যদি বাগান করতে বসেন তাহলে আপনার বাগান বেশিদিন টিকবে না । যেমন ধরুন শীতকালে যদি আপনি গ্রীষ্মকালের শাকসবজি লাগাতে চান কিংবা ফুল লাগাতে চান তাহলে সেই কাজগুলো মারা যাবে আমরা সকলেই জানি । তাই আমাদের ঋতুভেদে অবশ্যই পরিকল্পনা করে বাগানের কাজ শুরু করতে হবে । যে ঋতুতে যেই কাজ করতে হবে সেই কাজটি বেছে নিতে হবে । নাহলে আপনি পরিচিত পারেন মহাবিপদে ।

 

✅বাগানের সবজি স্বাস্থ্যকর ভাবে রান্না করুন – নিজের বাগানের সবজি আপনি নিজে খাবেন এর থেকে আনন্দের কিছু হতে পারেনা । একবার মন থেকে চিন্তা করুন তো আপনি আপনার নিজের বাগানের সবজি রান্না করে খাচ্ছেন । কি রকম অনুভূতি হতে পারে আপনার ? আমি নিশ্চিত হয়ে বলতে পারি যে আপনার অসম্ভব ভালো অনুভূতির সৃষ্টি হবে । শুধু বাগানে সবজি খাচ্ছেন বলে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে রান্না করবেন এরকমটি কিন্তু নয় । আপনি যদি স্বাস্থ্যকর ভাবে নিজের বাগানের সবজি রান্নার না করেন তাহলে সেখান থেকে যাবে পুষ্টি ঘাটতি । তাই নিজের বাগানের সবজি যখন রান্না করবেন তখন অবশ্যই খেয়াল করে নিয়মমাফিক ভাবে রান্না বান্না করার চেষ্টা করুন । যেন রান্নার ফলে নিজের বাগানের সবজি তে পুষ্টি ঘাটতি দেখা না দেয় ।

 

✅নিজের আনন্দ খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন – আপনি হয়তো ভাবতে পারেন বাগান করার মধ্যে কিসের আনন্দ । বাগান করা তো অনেক পরিশ্রম একটি কাজ । এই কাজ আপনার কখনোই আনন্দ দিতে পারেনা এরকমটা আপনার মনে হতে পারে । আপনার জানার জন্য বলছি বাগান করার যদি আনন্দের না হতো তাহলে এ বিষয়টি মানুষের শখের বিষয় হিসেবে পরিচিতি লাভ করত না । বাগান করার মধ্যে অন্যরকম একটা আনন্দের তৈরি হয় । যা মনের মধ্যে ন্যূনতম অনুভূতি রয়েছে তিনি অবশ্যই নিজের বাগানে আনন্দ খুঁজে নিতে পারবেন । তাই নিজের বাগানে পরিশ্রম করছেন বলে বিরক্ত হবেন না । বরং এর থেকে আনন্দিত হবার চেষ্টা করুন । আর আপনি যখন মন থেকে উৎপন্ন থাকবেন তখন আপনার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হবে । তখন আপনি শারীরিক ভাবে নিজেকে ফিট বলে দাবি করতে পারবেন ।

 

✅বিষণ্ণতা কাটিয়ে তুলুন – আপনার শখের বাগান আপনার স্ট্রেস কমাতে বেশ কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে বলে আমার ধারণা । আশা করি আমার এই ধারণার সাথে আপনিও একমত হবেন । ধরুন আপনার একটি ফুলের বাগান রয়েছে । আপনার যখন মন খারাপ তখন সে বাগানে গিয়ে নানা ফুলের গাছে পানি দেবেন এবং নেড়েচেড়ে দেখবেন । আপনি চাইলে সেই ফুলের গাছ গুলোর সাথে কথা বলতে পারেন । দেখবেন মুহূর্তেই আপনার মন ভালো হয়ে যাবে । আর চারদিকে আপনার যখন ফুলের সমারোহ থাকবে আপনার মন ভালো না হয় থাকতে পারবে না ।

 

আমাদের প্রত্যেকেরই একটি করে শখের বাগান থাকা সত্যি দরকার । আপনি এত ভাবতে পারবেন না যাদের নিজের শখের একটি করে বাগান রয়েছে তারা মনের দিক থেকে অনেক খানি প্রশান্তির আভাস পায় । যা তার শারীরিক উন্নতির জন্য অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে । আপনি যদি আপনার বাগান থেকে নিজের শারীরিক উন্নতি করতে চান তাহলে অবশ্যই আমাদের উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলোর দিকে আপনাকে নজর রাখতে হবে । আমাদের আজকের এই ব্লগ পোস্টে যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ধন্যবাদ ।