কিভাবে প্রজেক্টর স্ক্রীন বানানো যায় ( How to make a projector screen )

প্রজেক্টর স্ক্রীন মানে এককথায় বড়পর্দা । প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ব্যবহার মূলত বড় বড় সিনেমা হল কিংবা থিয়েটারে ইউজ করা হয় । আর বাসার জন্য আমরা সাধারনত টেলিভিশন ইউজ করে থাকি । বর্তমানকালে মানুষ টিভি কিনতে চাইলে বড় পর্দার টিভির দিকে আকর্ষণ অনেক বেশি । আদিকালে যেখানে 14 ইঞ্চি টিভি দেখাটাও অনেক ভাগ্যের বিষয় ছিল । সেখানে বর্তমানকালে 42 ইঞ্চি টিভিও যেন বেমানান । মানুষ চায় বড় পর্দায় টিভি দেখতে । বর্তমানকালে বিভিন্ন কোম্পানিগুলো প্রোজেক্টরের স্ক্রীণে বিভিন্ন ধরনের প্রজেক্টে কাজ করে থাকেন । প্রজেক্টর এর জন্য অবশ্যই ভালো হতে প্রজেক্টর স্ক্রীন এর প্রয়োজন হবে । তা না হলে আপনি যত ভালো প্রজেক্টর স্ক্রীন না কেন ছবির মান একবারেই খারাপ হয়ে যাবে । তাই প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়ানোর ব্যাপারে আপনাকে বেশ সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে । আমাদের আজকের ব্লগপোস্ট থেকে আপনাকে জানানোর চেষ্টা করব কিভাবে আপনি খুব সহজেই বড় প্রজেক্টর স্ক্রীন বানাতে পারেন । চলুন তাহলে দেরি না করে শুরু করা যাক ।

 

প্রজেক্টর স্ক্রীন বানানোর সহজ উপায়

 

✅পরিমাপ নির্ধারণ করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন বানানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই নির্দিষ্ট পরিমাপের স্ক্রিনের প্রয়োজন হবে । আপনার ছবির সাইজ মত আপনার প্রজেক্টরে স্ক্রিনের পরিমাপ নির্ধারণ করুন । আপনি শুরুতেই যদি আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন এর পরিমাপ নির্ধারণ না করেন তাহলে পরবর্তীতে আপনি স্ক্রীন সাইজ এর সমস্যায় ভুগতে পারেন ‌। তাই বুদ্ধি করে একটা স্যাম্পল ছবি নিয়ে প্রোজেক্টরের স্ক্রীণে সাইজ নির্ধারন করুন । আর তাহলেই আপনি স্ক্রীন সাইজ নিয়ে পরবর্তীতে করবেন না । আর আপনি যদি এই প্রজেক্টরের স্ক্রিন সাইজ নিয়ে খুব বেশি পারদর্শী না হন তাহলে অবশ্যই কোন এক্সপার্ট মানুষ তারা তারা দেখিয়ে দিতে পারে । এছাড়াও প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরীর জন্য বিভিন্ন কারিগর আপনি চাইলে আপনার এলাকায় পেয়ে যেতে পারেন ।

 

✅সঠিক রং নির্বাচন করুন – আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরীর দ্বিতীয় ধাপে আপনাকে আপনার প্রজেক্টর এর জন্য সঠিক রং নির্ধারণ করতে হবে । আপনি যদি সঠিক রং আপনার প্রজেক্টরের জন্য নির্বাচন না করতে পারেন তাহলে আপনার প্রজেক্টর বানানো বৃথা হয়ে যেতে পারে । ঠিকঠাক প্রজেক্টরের কালার যদি নির্বাচন না করতে পারেন তাহলে আপনি সঠিক ভিডিও প্রিন্ট পাবেন না । আপনি যখন আপনার প্রজেক্টর দিয়ে ভিডিও দেখতে শুরু করবেন তখন যদি কালার প্রিন্ট ভালো না হয় আপনার প্রজেক্টরে ভিডিও দেখাটাই বৃথা যাবেনা আমার । তাই আপনি যখন প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করবেন তখন অবশ্যই রং নির্বাচনের ক্ষেত্রে সর্তকতা অবলম্বন করুন । আপনার জন্য ভুল না হয় এজন্য পূর্বে প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করেছেন এমন কোন মানুষের পরামর্শ নেই কিংবা নিজে গিয়ে সেখানে দেখে আসুন । এতে করে আপনার ভুল হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কমে যাবে ।

 

✅রং করুন – প্রোজেক্টরের স্ক্রীন তৈরি তৃতীয় ধাপে আপনাকে রং করতে হবে । আপনি যে রং টি নির্বাচন করেছেন তা দিয়েই আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন এর রং করতে হবে । যদিও বা প্রজেক্টর স্ক্রীন এর জন্য অনেকেই বিভিন্ন ধরনের কাপড় ইউজ করে থাকে । কিন্তু প্রজেক্টর স্ক্রীন এর জন্য সবচেয়ে ভাল মাধ্যম হলো দেয়াল । আর যারা বাসায় প্রজেক্টর ব্যবহার করতে চান তাদের দেয়ালের কোন বিকল্প নেই । তাই অবশ্যই আপনার সুবিধামতো দেয়ালে আপনার নির্বাচিত রং করুন । রং করার সময় অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করবেন । সব জায়গায় যেন সময় হবে রং মিশে যায় তা নিশ্চিত করুন । আপনি যদি ঠিকমতো আপনার দেয়ালে রং করতে না পারেন তাহলে প্রজেক্টর দেখার সময় অনেক জায়গায় তা অসুস্থির কারণ হতে পারে । আপনি যখন আপনার প্রোজেক্টরের স্ক্রীণের জন্য রং করবেন তখন পুরো দেয়ালটি রং করে নেবে । তারপর আপনার পরিমিত স্ক্রিন জুড়ে সঠিক রংটি খুব ভালোভাবে করবার চেষ্টা করুন ।

 

✅ফ্রেম তৈরি করুন – আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন এর জন্য অবশ্যই ফ্রেম তৈরি করা খুব জরুরি । আপনার প্রোজেক্টরের স্ক্রীণে কালার করবার পর সব শেষে চতুর্দিকে একটি ফ্রেম তৈরি করুন । আপনি চাইলে ফ্রেম কাপড় কাগজ কিংবা আলাদা রং ব্যবহার করতে পারেন । তবে প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ফ্রেন্ড হিসেবে কালো কালার খুবই ভাল এবং জনপ্রিয় । প্রায় সেই মানুষ যখন প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করে তারা কালো কালার ব্যবহার করে থাকেন । আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ফ্যান এর কালার কালো হবার ফলে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন আরো ভালো ফলাফল দিবে । তাই আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি শেষ পর্যায়ে অবশ্যই কালো কালার দিয়ে চতুর্দিক একটি ফ্রেম তৈরি করার চেষ্টা করবেন ।

 

✅ইকুয়েপমেন্ট জোগাড় করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন এর জন্য আপনাকে বেশকিছু ইকুইপমেন্ট এর ব্যবহার করতে হবে । আপনি শুধু প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়াতে চাইলে বাড়াতে পারবেন না । এর জন্য নির্দিষ্ট কিছু ইকুপমেন্ট এর প্রয়োজন পড়বে । যেমন ধরুন রং, কাঠ , হাতুড়ি , পরিমাপের ফিতা ইত্যাদি । আর আপনি নিজে যদি প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করতে না পারেন তাহলে অবশ্যই একজন দক্ষ কারিগরের প্রয়োজন পড়বে ।

 

✅স্থান নির্বাচন করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরীর জন্য অবশ্যই আপনাকে আগে থেকেই একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ স্থান নির্বাচন করতে হবে । আপনাকে স্থান নির্বাচনের সময় অনেক বিষয়ের দিকে নজর রাখতে হবে । এমন কোন স্থান নির্বাচন করতে হবে যেখানে অন্য কোন কিছুই যেন না থাকে । একেবারেই ফাঁকা একটি স্থান নির্বাচন করতে হবে । আপনার প্রচেষ্টার আলো সরাসরি যেন সে স্থানে গিয়ে পৌছায় তা নিশ্চিত করতে হবে । তাই আপনি যখন আপনার বাসায় প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করবেন এদিকে খুব ভালোভাবে আপনাকে নজর দিতে হবে ।

 

✅পরামর্শ করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরীর জন্য অবশ্যই আপনাকে পরামর্শ করতে হবে । পরামর্শ ব্যতীত আপনি হঠাৎ প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করতে পারবেন না । আপনি যদি কোন ধরনের পরামর্শ ছাড়াই প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করতে চান তাহলে সেখানে নানা ধরনের ভুল হবে । আর হওয়াটাই স্বাভাবিক কেননা এরা কি আপনি কখনোই প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করেননি । তাই প্রজেক্টর তৈরি করব এই যে প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরির ব্যাপারে ভালো জানেন তার সাথে অবশ্যই পরামর্শ করবেন । আর আপনি যদি আপনার বাসায় প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়াতে চান সে ক্ষেত্রে পরিবারের অন্যান্য সদস্যের সাথে পরামর্শ করুন । আপনি যে স্থানে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করছেন সে স্থানে অন্যকোন কারো আপত্তি আছে কিনা তা জানো । যদি কারো আপত্তি থাকে সেখানে প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি না করাই ভালো । তা না হলে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন টি বেশি দিন স্থায়ী নাও হতে পারে । ফলে আপনার পুরো খাটনি বৃথা হয়ে যেতে পারে ।

 

✅বাজেট তৈরি করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করার জন্য আপনাকে অবশ্যই নির্দিষ্ট একটি বাজেট তৈরি করতে হবে। পাশের ছাড়া যদি আপনি প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি করতে শুরু করেন তাহলে আপনার অনেক টাকা লেগে যেতে পারে । যা হয়তো আপনার খারাপ লাগার কারণ হতে পারে । শুধু প্রজেক্টর স্ক্রীন কেন আপনি যখন নতুন কিছু করতে যাবেন সবকিছুতেই একটা বাজেট নির্ধারণ করার চেষ্টা করবেন । আপনি যখন কোনো কিছুর জন্য বাজেট নির্ধারণ করবেন তখন আপনার অর্থ অপচয় থেকে বাঁচবেন । আপনি যখন প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরির কথা ভাবছেন তাহলে আপনার প্রজেক্টর টি কত দামের হবে এবং কি মানের হবে তা নির্ধারন করুন । কেননা প্রজেক্টর বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে । যেই প্রজেক্টরের দাম যত বেশি তার ফলাফল ততো ভালো । তাই প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়ানো পূর্বে আপনার প্রজেক্টরের দাম এবং আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন এর খরচ কি রোগ হতে পারে তার একটি খসড়া তালিকা তৈরি করুন ।

 

✅প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ব্যবহার সম্পর্কে জানুন – আমরা প্রত্যেকে প্রজেক্টরে ছবি কিংবা ভিডিও দেখতে ভালোবাসি । বড় পর্দায় ছবি কিংবা ভিডিও দেখতে কার না ভালো লাগে । আমরা যখন বড় পর্দায় প্রজেক্টর স্ক্রীন এর মাধ্যমে ছবি দেখি সবকিছু যেন জীবন্ত লাগে । একবার যখন আপনি প্রজেক্টর স্ক্রীন এ ভিডিও দেখবেন তারপর থেকে আপনার টেলিভিশন দেখাটা ভালো নাও লাগতে পারে । আপনার তখন শুধু মনে হবে প্রজেক্টর স্ক্রীন এ যদি ভিডিও দেখতে পারতাম তাহলে মন্দ হত না । আপনি চাইলেই উঠার প্রজেক্টর স্ক্রীন বানিয়ে ফেলতে পারবেন না । প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়ানোর জন্য আপনাকে আগে থেকেই প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে । আর আপনি যদি প্রজেক্টর স্ক্রীন এর নূন্যতম ধারণা না নিয়েই কাজে লেগে পড়েন তাহলে আপনার ব্যর্থতা শতভাগ হবে আপনি জেনে রাখুন । প্রজেক্টর স্ক্রীন আপনার যদি বাসায় না থাকে তাহলে যার বাসায় প্রজেক্টর স্ক্রীন রয়েছে তার সাথে যোগাযোগ করে প্রজেক্টর স্ক্রীন ব্যবহার শিখে নিন । জানতে চেষ্টা করুন প্রজেক্টর স্ক্রীন কিভাবে ব্যবহার করতে হয় । আর আপনি যখন পুরোপুরিভাবে জানতে পারবেন প্রজেক্টর স্ক্রীন কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এবং তিনি কিভাবে প্রজেক্টর স্ক্রীন বানিয়েছেন । ঠিক তখনই আপনি সঠিক প্রজেক্টর স্ক্রীন বাড়াতে পারবেন এবং প্রজেক্টর স্ক্রীনের ব্যবহার সঠিকভাবে করতে পারবেন ।

 

✅পরীক্ষামূলক সম্প্রচার করুন – প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরীর ব্যাপারে আপনি অবগত হলেন এবং অনেক পরিশ্রম করে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন বানিয়ে ফেললেন । এবার আপনার প্রোজেক্টরের স্ক্রীণে ভিডিও দেখার পালা । তাই প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরি শেষ ধাপে আপনাকে পরীক্ষামুলকভাবে বারবার প্রজেক্টর স্ক্রীন এ ভিডিও কিংবা ছবি দেখতে হতে পারে । আপনার প্রজেক্টরে স্কিনের পরীক্ষামূলক সম্প্রচার শুরু করুন । প্রজেক্টর স্ক্রীন এর বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে ভিডিও কিংবা ছবি দেখবার চেষ্টা করুন । আপনি যখন বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন চেক করবেন তখন আপনি যদি কোন ভুল পান তা শুধরে নিয়ে আবারো পরীক্ষামূলক সম্প্রচার করুন । আপনি পরীক্ষামূলক সম্প্রচারের জন্য আপনার বন্ধু-বান্ধব কিংবা পরিবারের সদস্যদের দেখাতে পারেন । তাদেরকে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন টি নিয়ে মন্তব্য করতে বলুন । তারা যদি আপনাকে কোন ভুল ধরিয়ে দেয় কিংবা নতুন কিছু যোগ করতে বলেন তাতে রাগ করবেন না । বরং তাদের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনবার চেষ্টা করুন । সবশেষে আপনি যদি মনে করেন আপনার প্রজেক্টর স্ক্রিনে কোন ধরনের সমস্যা নেই তাহলে আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন টি সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে ধরে নিন ।

 

আশা করি আমাদের আজকের এই ব্লগপোস্ট থেকে আপনি প্রজেক্টর স্ক্রীন সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের ধারণা পেয়েছেন । আর এই ধারণা থেকে আপনি নতুন প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরিতে নতুন মাত্রা যোগ করতে পারবেন । যা আপনার প্রজেক্টর স্ক্রীন তৈরিতে অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা পালন করবে । আশা করি আপনি সফলতার সাথে আপনার নতুন প্রজেক্টর স্ক্রীন টি তৈরি করতে পারবেন । আপনার জীবন সুখের এবং শান্তির হোক এই কামনাই করি । এই ব্লগ পোস্ট টি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ধন্যবাদ ।

2 thoughts on “কিভাবে প্রজেক্টর স্ক্রীন বানানো যায় ( How to make a projector screen )

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *