কিভাবে হাত দিয়ে মুখ স্পর্শ করা বন্ধ করা যায় ( How to stop touching face with hands )

আমাদের হাত যেন আমাদের কথা শুনতে চাই । সারাদিন মনের অজান্তেই হাত অনেক জায়গায় স্পর্শ করছে । অনেক সময় নেই হাতে আমাদের নিয়ন্ত্রণ থাকেনা । আমাদের হাতের বেশ কিছু বদ অভ্যাস আছে । যেমন হাত দিয়ে মুখের স্পর্শ করা নাকে স্পর্শ করার কাজে স্পর্শ করা ইত্যাদি । এর মধ্যে অন্যতম হলো মুখের স্পর্শ । আমরা প্রত্যেকেই সারাদিন বেশীরভাগ সময়ে হাত দিয়ে মুখের স্পর্শ করে থাকি । যা সত্যি খারাপ একটা অভ্যাস । আমরা যখন খারাপ দিয়ে মুখের স্পর্শ করে তখন নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঘটতে পারে । আমাদের শরীরে যত প্রকার রোগ জীবাণু সংক্রমণ ঘটে এর বেশিরভাগই ঘটে হাতের ময়লা থেকে । আর তাই আমরা যখন অযথাই হাতের স্পর্শ থেকে আমাদের মুখে যদি বাঁচাতে পারি তাহলে অনেক রোগের সংক্রমণ থেকে বাঁচা যাবে । হাতের স্পর্শ থেকে মুখ বাঁচানো অতো সহজ কথা নয় । আপনি বা আমি চাইলেই এই অভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসার সম্ভাব না । আমাদের আজকের এই পক্ষ থেকে আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব কিভাবে হাতের স্পর্শ থেকে আপনার মুখ রক্ষা করবেন । চলুন তাহলে দেরি না করে কিভাবে আপনি আপনার হাতের স্পর্শ থেকে আপনার মুখ বাঁচাবেন তা জেনে নেয়া যাক ।

 

 

হাত দিয়ে মুখ স্পর্শ বন্ধ করার উপায়

 

 

✅আপনার হাতকে ব্যস্ত রাখুন – আপনার মনে হতে পারে হাতকে ব্যস্ত রাখার কি আছে । হাত তো সারাদিন নানা কাজে ব্যস্ত থাকে । তাই আপনার জন্য বলছি আপনি যখন সামান্যটুকু বিশ্রামের সময় পান সে সময়টুকু আপনার হাত আপনার খেয়ে চলে যায় । আপনার হয়তো ইচ্ছা হতে পারে আপনার মুখে স্পর্শ করার । যখন আপনার বুকে স্পর্শ করতে ইচ্ছা করবে তখন আপনার হাতকে অন্য কোথাও ব্যস্ত রাখুন । যেমন ধরুন আপনি চাইলেই আপনার হাত যখন মুখে স্পর্শ করতে চাইবে তখন মোবাইল নিয়ে তা ব্যবহার করতে থাকুন । এতে করে আপনার হাত মোবাইলে ব্যস্ত হয়ে যাবে । ফলে আপনার মুখ হাতের স্পর্শ থেকে বেঁচে যাবে । আবার ধরুন আপনি যখন টিভি দেখছেন তখন হয়তো আপনি পুরোপুরি ফ্রি । ঠিক তখনই একটা মনে হতে পারে আপনার মুখে কি যেন পড়ছে । আর এইভাবে হয়তো আপনি আপনার মুখে ক্রমাগত স্পর্শ করে যাচ্ছেন । ঠিক সেসময় আপনি চাইলে রিমোট দিয়ে টিভি চ্যানেল পরিবর্তন করতে পারেন । আবার আপনি চাইলে আপনার হাত দুটো দিয়ে আপনার নিজের পায়ে কিংবা শরীরের ম্যাসেজ করতে পারেন । এতে করে আপনার হাত অন্য কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়বো । আমাদের মধ্যে এমন অনেকে আছেন যারা রাগ করলে খুশি হলে কিংবা কষ্ট পেল মুখে হাত দিয়ে থাকেন । যা সত্যি খারাপ একটি অভ্যাস । তাই অযথাই মুখে হাত না দিয়ে আপনার হাতকে ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করবেন ।

 

✅একটু অন্যভাবে বসার চেষ্টা করুন – একটা কথা মাথায় রাখবে আপনার আপনার শরীরের একটি অংশ । অন্যকেও আপনার হাতকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না । আপনারা আপনাকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে । আর আপনার এই হাতকে নিয়ন্ত্রণ করা অসম্ভব কিছু না । এর অন্যতম উপায় হতে পারে আপনি যখন কোথাও বসবেন তখন একটু অন্যভাবে আসার চেষ্টা করুন । যেমন ধরুন আপনি টিভি দেখতে বসে আছেন । ঠিক সে সময়ে আপনার হাত দুটো নিচে রেখে তার উপরে বসার চেষ্টা করুন । এতে করে আপনার হাত চাইলেও মুখে চলে যেতে পারবে না । এখন কি আপনি আপনার ক্লাসে খাবার টেবিলে কিংবা ঠিক একইভাবে বসতে পারেন । প্রথম প্রথম ইয়াভাশ্রী আর্পান খারাপ লাগতো না । এমনকি এই অভ্যাসটি আপনার সকল স্থানে বেমানান মনে হতে পারে । আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি পরবর্তীতে এই অভ্যাসটি আপনার ভীষণভাবে কাজে দেবে । আর তাই আপনাকে বলছি আপনি যদি অযৌক্তিকভাবে নিজের হাতের স্পর্শ থেকে আপনার মুখে রক্ষা করতে চান তাহলে অবশ্যই এই পদ্ধতিটি কাজে লাগাতে পারেন ।

 

✅রিমাইন্ডার সেট করুন – প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে আমরা এখন অনেক এগিয়ে । আর এই প্রযুক্তির আশীর্বাদে এখন অনেক কিছুই আমাদের জন্য সহজ হয়ে উঠেছে । শুধুমাত্র একটি মোবাইলে যেন পুরো পৃথিবী আপনার হাতের মুঠোয় । মোবাইলে বিভিন্ন ধরনের রিমাইন্ডার আপনি চাইলেই সেভ করতে পারেন । এই বিষয়টি আপনি আমি সকলেই কমবেশী জানি । তবে এর ব্যবহার জানা সত্ত্বেও আমরা অনেকেই এই রিমাইন্ডার ব্যবহার করিনা । কিন্তু বহির্বিশ্বে এ রিমাইন্ডার ব্যবহার অতি জনপ্রিয় । আপনি চাইলে ছোটখাটো বিভিন্ন কাজের রিমাইন্ডার মোবাইলে সেট করতে পারেন । এতে করে যারা ভুলে যান তাদের ভুলে যাওয়ার ব্যাপারটি ঘুচিয়ে যাবে । তাই আপনি যদি মনে করেন আপনার মুখে হাত দেওয়ার ব্যাপারটি আপনি ঝেমধ্যে ভুলে যান তাহলে এই রিমাইন্ডারঃ আপনার দুর্দান্ত কাজে লাগতে পারে । দিনে অন্তত চার-পাঁচবার এই রিমাইন্ডার সেট করুন । এতে করে যখন প্রতিদিন আপনি দিনে চার-পাঁচবার এ রিমান্ড টি দেখবেন , তখন আপনার বদভ্যাস থেকে আপনি নিজেকে আস্তে আস্তে সরিয়ে নিয়ে আসতে সক্ষম হবেন । তাই নিজের মুখের যত্নের জন্য হলেও এ পদ্ধতি গ্রহণ করুন ।

 

✅হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করুন – বর্তমান করনা কালীন এই সময়ে আমরা হয়তো অনেকেই ভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য হ্যান্ড গ্লাভস ইউজ করে থাকি । হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহারের ফলে আমরা নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্ত থাকতে পারে । ঠিক যেমনটি আমরা এখন করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার করি তেমনি ভাবে আমরা হাতের স্পর্শ থেকে মুখকে বাচার জন্য হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার শুরু করতে পারি । শুরুতে আপনার হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহারে কিছুটা অস্বস্তি হতে পারে । তবে সময়ের ব্যবধানে আস্তে আস্তে এ বিষয়টি তো আপনি অভ্যস্ত হয়ে যাবেন বলে আমার বিশ্বাস। হাতের গ্লাভস ব্যবহারের জন্য অবশ্যই আপনাকে শতভাগ কটনের কাপড় ব্যবহার করবেন । যাতে করে আপনার খুব বেশি খারাপ না লাগে । আবার আপনি যদি মনে করেন হ্যান্ডগ্লাভস পড়ে থাকা আপনার সম্ভব নয় তাহলে আপনি কোন পথ অবলম্বন করতে পারেন । যেমন ধরুন আপনি আপনার আঙ্গুলে নানা ধরনের স্টেপ লাগাতে পারেন । এতে করে আপনি ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া থাকে আপনার মুখকে রক্ষা করতে পারবেন ।

 

✅পরিবার বন্ধুবান্ধবকে আগে থেকেই বলে রাখুন – আমাদের জীবনের বেশিরভাগ সময়ই আমরা পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদের সাথে কাটিয়ে থাকে । তাই একমাত্র তারাই জানেন আমাদের কি কি অভ্যাস আর বদভ্যাস রয়েছে । আপনার যদি পরিবার কিংবা বন্ধুবান্ধব ভালো হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বদভ্যাস সম্পর্কে তারা আপনাকে সচেতন করার চেষ্টা করবেন । আর যদি তারা আপনার প্রতি যত্নবান না হন তাহলে আপনাকে সে সম্পর্কে কিছুই বলবে না । তাই আপনার পরিবার কিংবা বন্ধুবান্ধবকে মুখে হাত দেবার ব্যাপারটি আগে থেকে বলে রাখুন । তাদেরকে বলুন যে আপনি যখন আপনার মুখে হাত দেবেন ঠিক সে সময় যেন আপনাকে তারা বারণ করেন । এর ফলে তারা যখন প্রতিনিয়ত আপনাকে আপনার বদভ্যাসের কথা বারোন করতে থাকবে তখন আপনি এ বিষয়ে থেকে বিরত থাকতে বাধ্য হবেন ।

 

✅মেডিটেশন করুন – মেডিটেশন বর্তমান যুগে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে । মেডিটেশনের মাধ্যমে আপনি আপনার মন ও শরীরের ওপর নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। আপনি যখন মেডিটেশন করবেন তখন আপনার মন শরীর দুটোই প্রশান্তি বোধ করবে । আপনি এমন মেডিটেশন করুন যেখানে আপনি আপনার হাতকে স্থির রাখতে পারেন । আর যখন আপনি প্রতিদিন নিয়ম করে 20 থেকে 30 মিনিট মেডিটেশন করবেন সে সময়ের জন্য আপনার হাত নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করুন । যখন আপনি গড়ে তুলতে পারবেন তখন দেখবে আপনি হাত দিয়ে আর আপনার মুখ স্পর্শ করছেন না । এ ধরনের বদ অভ্যাস দূর করার জন্য মেডিটেশন খুবই জরুরী । তাই যাদের মধ্যে এ ধরনের অভ্যাস রয়েছে তারা মেডিটেশনের মাধ্যমে এ ধরনের ছোটখাটো বদঅভ্যাস দূর করতে পারেন ।

 

✅হাত পরিষ্কার রাখুন – মুখে হাত দেওয়া খারাপ কিছু নয় । মুখে হাত দিলে আপনার ফাঁসি জেল হয়ে যাবে আপনি মারা যাবেন এমন কিছু নয় । তবে অপরিষ্কার হাত দিয়ে যখন আপনি আপনার মুখ স্পর্শ করবেন তখন আপনার শরীরে নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঘটতে পারে । তাই যতটা সম্ভব হাত পরিষ্কার রাখুন । দিনে নিয়ম করে আপনার হাত বারবার পরিষ্কার করুন । হাত পরিষ্কারের জন্য আপনি হ্যান্ডওয়াশ কিংবা সাবান ব্যবহার করতে পারেন । এমনকি আপনার হাতের নখ গুলো যেন বড় না হয়ে যায় সেদিকে খেয়াল রাখুন । হাতের নখ বড় হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা কেটে ফেলার ব্যবস্থা করুন । কেননা আপনার হাতের নখ যখন বেড়ে যাবে তখন হাতের নখের ফাঁকে নানা ধরনের ময়লা আবর্জনা ঢুকে থাকবে । তখন সেই হাত দিয়ে যখন আপনি আপনার মুখের স্পর্শ করবেন সেই ময়লাগুলো আপনার মুখেও যাবে । তাই আপনার শরীরের পাশাপাশি আপনার হাতের যত্ন নিন ও পরিষ্কার রাখুন ।

 

✅স্কিন কেয়ার এ যোগাযোগ করুন – আমাদের প্রত্যেকেরই নিয়ম করে স্কিন কেয়ার এ যোগাযোগ করা উচিত । স্কিন কেয়ার এ যোগাযোগের ফলে আমরা আমাদের শরীরের নানান সমস্যা সম্পর্কে জানতে পারবো । এর ফলে আমাদের স্কিনে কোন ধরনের সমস্যা হলে তা আমরা তাৎক্ষণিক সমাধান করতে পাবো । এছাড়া আমাদের হাত দিয়ে মুখ স্পর্শ করার বিষয়ে স্কিন কেয়ার ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করলে তারা নানা ধরনের পরামর্শ দেবে । ফলে সেই সকল টিপস গুলো নিয়েও আমরা এ ধরনের বদ অভ্যাস থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারি । আমাদের বাংলাদেশ আমাদের মুখে প্রত্যেকেরই ব্রণ উঠে থাকে । আরে ব্রণ নিয়ে আমাদের যেন মাথা ব্যাথার শেষ নেই । আমাদের যখন ব্রণ উঠে তখন আমরা নিজেরাই যেন স্কিনের ডাক্তার হয়ে যাই । নিজের মুখে নানা ধরনের টোটকা ব্যবহার করতে থাকি । যা মাঝেমধ্যে আমাদের ভালো ফল দিলেও । ভবিষ্যতে তা ক্ষতির কারণ হতে পারে । তাই আপনার মুখে যখন ব্রণ উঠবে তখন অযথাই হাত দিয়ে তা খোঁটাখুঁটি করার চেষ্টা করবেন না । যদি পারেন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে কিছু করুন । তা না হলে অপরিষ্কার হাত দিয়ে তা ধরার চেষ্টা করবেন না । আপনার মুখে হাত দেবার খুব ইচ্ছা হলে অবশ্যই হাত পরিষ্কার করে তবেই মুখে হাত দেবেন ।

 

মুখে হাত দেয়ার মত খারাপ অভ্যাস থেকে আমাদের প্রত্যেকেরই বিরত থাকা উচিত । আরে অভ্যাস ত্যাগ করার জন্য অবশ্যই আমাদের সময় দিতে হবে । আর সময়ের সাথে সাথে অবশ্যই কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে । তা না হলে এ বদভ্যাস থেকে আমরা বেরিয়ে আসতে পারবো না । যারা এই বদভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসতে চান তারা অবশ্যই উপরের পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করবেন । দেখবেন সময়ের ব্যবধানে অবশ্যই একদিন আপনি এই বদভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হবেন । আশাকরি আপনার জীবন সুখের এবং সুন্দর হোক । আমাদের আজকের এই ব্লগ পোস্টে যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ধন্যবাদ ।

3 thoughts on “কিভাবে হাত দিয়ে মুখ স্পর্শ করা বন্ধ করা যায় ( How to stop touching face with hands )

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *